মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

গ্রাম আদালত বিধি মালা

রেজিস্টার্ড নং ডি এ-১
বাংলাদেশ গেজেট
অতিরিক্ত সংখ্যা
কর্তৃপক্ষ কর্তৃক প্রকাশিত
সোমবার, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
স্থানীয় সরকার, পল্লী উনড়বয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়
স্থানীয় সরকার বিভাগ
প্রজ্ঞাপন
তারিখ, ২৮ মাঘ ১৪২২ বঙ্গাব্দ/১০ ফেব্রæয়ারি ২০১৬ খ্রিস্টাব্দ
এস, আর, ও নং ২৯-আইন/২০১৬।গ্রাম আদালত আইন, ২০০৬ (২০০৬ সালের ১৯ নং
আইন) এর ধারা ২০ এ প্রদত্ত ক্ষমতাবলে, সরকার নিমড়বরূপ বিধিমালা প্রণয়ন করিল, যথা:
১। শিরোনাম ।এই বিধিমালা গ্রাম আদালত বিধিমালা, ২০১৬ নামে অভিহিত হইবে।
২। সংজ্ঞা।বিষয় বা প্রসঙ্গের পরিপন্থী কোন কিছু না থাকিলে এই বিধিমালায়
(ক) ""আইন'' অর্থ গ্রাম আদালত আইন, ২০০৬ (২০০৬ সালের ১৯ নং আইন);
(খ) ""আবেদনকারী'' অর্থ বিবাদের কোন পক্ষ যিনি বিরোধীয় বিষয়ে আবেদন করেন;
(গ) ""ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান'' অর্থ সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এবং
ক্ষেত্রমতে, স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন, ২০০৯ এর ধারা ৩৩ অনুসারে
চেয়ারম্যানের অনুপস্থিতিতে চেয়ারম্যানের প্যানেল হইতে দায়িত্ব পালনকারী ব্যক্তি;
(ঘ) ""চেয়ারম্যান'' অর্থ গ্রাম আদালতের চেয়ারম্যান;
(ঙ) ""তফসিল'' অর্থ আইনের তফসিল বা উহার কোন অংশ;
(চ) ""ধারা'' অর্থ আইনের কোন ধারা;
(ছ) ""প্রতিবাদী'' অর্থ বিবাদের অন্য পক্ষ যাহার বিরুদ্ধে আবেদন করা হয়;
(জ) ""ফরম'' অর্থ এই বিধিমালার কোন ফরম;
(ঝ) ""সদস্য'' অর্থ ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য; এবং
(ঞ) ""আদালতের সদস্য'' অর্থ গ্রাম আদালতের সদস্য।
( ১৪২৭ )
মূল্য ঃ টাকা ৩০.০০
১৪২৮ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬
৩। আবেদনপত্র দাখিল।(১) আইনের ধারা ৪ এর উপ-ধারা (১) এর বিধান অনুযায়ী গ্রাম
আদালত গঠনের জন্য আবেদনকারী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যনের নিকট নির্ধারিত ফরম-১ এ
আবেদন দাখিল করিবে।
(২) উপ-বিধি (১) এর বিধান অনুযায়ী উক্ত আবেদনে নিমড়বলিখিত বিবরণ থাকিতে হইবে,
যথা:
(ক) যে ইউনিয়ন পরিষদে আবেদন করা হইয়াছে উহার নাম;
(খ) আবেদনকারী এবং তাহার পিতা, মাতা এবং ক্ষেত্রমত, স্বামী বা স্ত্রীর নাম এবং
ঠিকানা;
(গ) প্রতিবাদী এবং তাহার পিতা, মাতা এবং ক্ষেত্রমত, স্বামী বা স্ত্রীর নাম এবং ঠিকানা;
(ঘ) যে ইউনিয়নে অপরাধ সংঘটিত হইয়াছে বা বিরোধ বা মামলার কারণ উদ্ভব হইয়াছে
সেই ইউনিয়নের এখতিয়ারভুক্ত স্থানের নাম;
(ঙ) সংক্ষিপ্ত বিবরণাদিসহ অভিযোগ বা দাবীর প্রকৃতি ও মূল্যায়ন (আর্থিক মূল্যমান);
(চ) সাক্ষীগণ এবং তাহাদের পিতা, মাতা এবং ক্ষেত্রমত, স্বামী বা স্ত্রীর নাম এবং ঠিকানা;
এবং
(ছ) প্রার্থিত প্রতিকার।
(৩) উপ-ধারা (১) এর বিধান অনুযায়ী আবেদনপত্র দাখিল করিবার সময় আইনের তফসিলের
প্রম অংশে বর্ণিত ফৌজদারী মামলা হইলে ১০ (দশ) টাকা এবং দ্বিতীয় অংশে বর্ণিত দেওয়ানী
মামলা হইলে ২০ (বিশ) টাকা হারে ফিস প্রদান করিতে হইবে।
৪। আবেদনপত্র পরীক্ষা।(১) চেয়ারম্যান কোন আবেদন প্রাপ্ত হইলে প্রাথমিকভাবে উহার
উপযুক্ততা পরীক্ষা করিয়া দেখিবেন।
(২) উপ-বিধি (১) এ বর্ণিত প্রাথমিক পরীক্ষার জন্য আবেদনপত্রে বর্ণিত অভিযোগটি আইনের
তফসিলভুক্ত কিনা তাহা যাচাই করিতে হইবে।
(৩) আবেদনপত্র পরীক্ষাপূর্বক সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান যদি এই সিদ্ধান্তে
উপনীত হন যে, আবেদনপত্রে বর্ণিত অভিযোগটি গ্রাম আদালতে বিচার্য নহে তাহা হইলে অবিল¤ে¦
লিখিতভাবে অগ্রাহ্যের কারণ উল্লেখপূর্বক আবেদনপত্রটি আবেদনকারীর নিকট ফেরত দিবেন।
৫। আবেদনপত্র গ্রহণ ।(১) আবেদনপত্র গ্রহণের পর আইনের ধারা ৪ এর উপ-ধারা (১)
অনুযায়ী অবিল¤ে¦ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অথবা চেয়ারম্যানের অনুপস্থিতিতে চেয়ারম্যানের
প্যানেল হইতে দায়িত্ব পালনকারী ব্যক্তি গ্রাম আদালত গঠনের উদ্যোগ গ্রহণ করিবেন।
(২) যখন কোন আবেদনপত্র গৃহীত হয়, উহার বিবরণ তাৎক্ষণিকভাবে ফরম-২ এ মামলা
রেজিস্টার বহিতে লিপিবদ্ধ করিতে হইবে এবং উক্ত রেজিস্টার বহি অনুযায়ী মামলাটির ন¤¦র ও সন
আবেদনপত্রের উপর লিখিত হইবে এবং ফরম-৩ এ আদেশনামায় আবেদনপত্র গৃহীত হওয়া সম্পর্কিত
প্রয়োজনীয় আদেশ লিপিবদ্ধ করিতে হইবে।
বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬ ১৪২৯
(৩) আইনের ধারা ৪ এর উপ-ধারা (২) অনুযায়ী যদি প্রম শ্রেণীর ম্যাজিস্ট্রেট আদালত বা
সহকারী জজ আদালতের নিকট আবেদন করা হয় এবং প্রম শ্রেণীর ম্যাজিস্ট্রেট আদালত বা সহকারী
জজ আদালত যদি মনে করেন যে, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান যে আদেশ প্রদান করিয়াছেন তাহা
সঠিক বা আইনানুগ নহে সেক্ষেত্রে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে আবেদনপত্র গ্রহণ করিবার জন্য
লিখিত নির্দেশ প্রদান করিতে পারিবেন।
(৪) সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের নিকট মামলা ফেরত পাঠানো হইলে উহা ফরম-
২ এ বিধৃত মামলা রেজিস্টারে লিপিবদ্ধ করিয়া বিচার পঙμিয়া শুরু করিতে হইবে।
(৫) ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নিজে আবেদনকারী হইলে বা ইউনিয়ন পরিষদের
চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ দাখিল করিতে হইলে, চেয়ারম্যান প্যানেলের ১নং সদস্যের
নিকট উহা দাখিল করিতে হইবে।
৬। রিভিশন।(১) আবেদনকারী দাখিলকৃত আবেদন অগ্রাহ্য হইবার তারিখ হইতে ৩০
(ত্রিশ) দিনের মধ্যে আইনের ধারা ৪ এর উপ-ধারা (২) অনুযায়ী যথাযথ এখতিয়ারসম্পনড়ব সহকারী
জজ আদালতের নিকট রিভিশন দাখিল করিতে পারিবে।
(২) উপ-বিধি (১) অনুযায়ী রিভিশন আবেদনের সংক্ষিপ্ত কারণ উল্লেখ করিয়া উক্ত আবেদনে
পক্ষগণের নাম, পরিচয় ও ঠিকানাসহ লিখিত এবং আবেদনকারীর স্বাক্ষর বা টিপসহিযুক্ত হইতে হইবে
এবং উহার সহিত ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কর্তৃক অগ্রাহ্যকৃত মূল আবেদনপত্রটি জমা দিতে
হইবে ।
৭। রিভিশন আবেদন নিষ্পত্তি।(১) আইনের ধারা ৪ এর উপ-ধারা (২) এর বিধান অনুযায়ী
যদি সহকারী জজ আদালতের নিকট প্রতীয়মান হয় যে, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান যে আদেশ
দিয়াছেন তাহা সঠিক বা আইনানুগ নহে তাহা হইলে তিনি উক্ত ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে
আবেদনপত্র গ্রহণ করিবার জন্য লিখিত নির্দেশ প্রদান করিয়া রিভিশনটি নিষ্পত্তি করিবেন।
(২) আইনের ধারা ৪ এর উপ-ধারা (৩) অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট আদালত রিভিশন দায়েরের তারিখ
হইতে ৩০ (ত্রিশ) দিনের মধ্যে উক্ত রিভিশন নিষ্পনড়ব করিবেন।
৮। সমন জারী, ইত্যাদি।(১) বিধি ৭ অনুযায়ী আবেদনপত্র মামলা রেজিস্টার বহিতে
অন্তর্ভুক্ত করিবার পর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, মামলা গ্রহণের তারিখ হইতে ৭ (সাত) দিনের
মধ্যে তৎকর্তৃক নির্ধারিত তারিখ ও সময়ে উপস্থিত হইবার জন্য আবেদনকারীকে অবহিত করিবেন
এবং প্রতিবাদীকেও অনুরূপ নির্দিষ্ট তারিখ ও সময়ে উপস্থিত হইবার জন্য ফরম-৪ অনুযায়ী সমন জারী
করিবেন।
(২) প্রতিটি সমন দুই প্রস্থে লিখিত এবং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কর্তৃক স্বাক্ষরিত ও
মোহরাঙ্কিত হইতে হইবে এবং গ্রাম আদালত গঠিত হইবার পর একইরূপে উহা চেয়ারম্যান কর্তৃক
স্বাক্ষরিত ও মোহরাঙ্কিত হইতে হইবে।
(৩) প্রতিটি সমন ইউনিয়ন পরিষদের কোন কর্মচারী অথবা ক্ষেত্রমত, ইউনিয়ন পরিষদের
চেয়ারম্যান অথবা চেয়ারম্যান কর্তৃক এতদুদ্দেশ্যে নিযুক্ত কোন ব্যক্তি জারী করিবেন।
১৪৩০ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬
(৪) যে প্রতিবাদীর প্রতি সমন দেওয়া হয় সমনের একপ্রস্থ তাহাকে অর্পণ করিয়া বা তাহার
নিকট প্রেরণ করিয়া উক্ত সমন তাহার উপর ব্যক্তিগতভাবে জারী করিতে হইবে।
(৫) সমন জারী অন্তে এই কাজের জন্য নিয়োজিত ব্যক্তি সমনের অন্য প্রস্থের উল্টা পৃষ্ঠায় সমন
গ্রহীতার প্রাপ্তিসূচক স্বাক্ষর গ্রহণ করিবেন এবং সংশ্লিষ্ট পক্ষের অনুপস্থিতিতে তিনি বা তাহার
পরিবারের সদস্য বরাবর সমন জারী করা হইলে সমনের অন্য প্রস্থের উল্টা পৃষ্ঠায় সমনগ্রহীতার পক্ষে
প্রাপ্তিসূচক স্বাক্ষর গ্রহণ করিবেন।
(৬) যথাবিহিত চেষ্টা সত্তে¡ও উপ-বিধি (৫) এ বর্ণিত পদ্ধতিতে সমন জারী করা সম্ভব না হইলে
সমন জারীর দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মচারী দুই প্রস্থ সমনের এক প্রস্থ সমন প্রদত্ত ব্যক্তি সাধারণত যে বাড়ীতে
বসবাস করিয়া থাকেন,উহার কোন প্রকাশ্য স্থানে লটকাইয়া জারী করিবেন যাহাতে উক্ত সমন
যথাবিহিতভাবে জারী করা হইয়াছে বলিয়া গণ্য করা যাইবে।
(৭) যে ব্যক্তিকে সমন প্রদান করা হইয়া থাকে তিনি যদি সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ এলাকার
বাহিরে বসবাস করিয়া থাকেন, তাহা হইলে উক্ত ইউনিয়ন পরিষদ বা গ্রাম আদালতের চেয়ারম্যান
রেজিস্ট্রী ডাকযোগে (প্রাপ্তিস্বীকার পত্রসহ) সমন জারী করাইতে পারিবেন এবং আবেদনকারীকে এই
বাবদ খরচ বহন করিতে হইবে।
৯। গ্রাম আদালতে প্রতিনিধি মনোনয়ন।(১) নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কোন পক্ষ আদালতের
সদস্য মনোনয়ন করিতে ব্যর্থ হইলে এইরূপ ব্যর্থতার বিষয়টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে
অবহিত করিবেন, অন্যথায় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সংশ্লিষ্ট পক্ষের নিকট ব্যর্থতার কারণ
জানিতে চাহিবেন।
(২) উপ-বিধি (১) অনুসারে প্রাপ্ত কারণ সন্তোষজনক বলিয়া প্রতীয়মান হইলে চেয়ারম্যান
সংশ্লিষ্ট পক্ষকে তাহার সম্মতিμমে ইউনিয়ন পরিষদের কোন সদস্য এবং স্থানীয় কোন ব্যক্তিকে
আদালতের সদস্য মনোনয়নপূর্বক গ্রাম আদালত গঠনের উদ্যোগ গ্রহণ করিবেন।
(৩) শুনানীকালে কোন পক্ষের প্রতিনিধি অনুপস্থিত থাকিলে চেয়ারম্যান সংশ্লিষ্ট পক্ষের
সম্মতিμমে ইউনিয়ন পরিষদ এর কোন সদস্য এবং স্থানীয় ব্যক্তিকে তাৎক্ষণিকভাবে আদালতের
সদস্য মনোনয়নপূর্বক মামলার নিষ্পত্তি করিতে পারিবেন।
১০। গ্রাম আদালত গঠন।(১) প্রতিবাদীর উপর সমন জারী করা হইলে ইউনিয়ন পরিষদের
চেয়ারম্যান পক্ষগণকে ৭ (সাত) দিনের মধ্যে তাহাদের আদালতের সদস্য মনোনয়ন করিবার জন্য
ফরম-৬ অনুযায়ী নির্দেশ দিবেন।
(২) মামলার পক্ষগণ উপ-বিধি (১) অনুযায়ী নির্দেশপ্রাপ্ত হইবার ৭ (সাত) দিনের মধ্যে ফরম-
৭ অনুযায়ী স্ব স্ব সদস্যগণের মনোনয়ন প্রদান করিবেন।
(৩) উপ-বিধি (২) অনুযায়ী মনোনীত আদালতের সদস্যগণ ও ইউনিয়ন পরিষদের
চেয়ারম্যানকে লইয়া গ্রাম আদালত গঠিত হইবে:
তবে শর্ত থাকে যে, আবেদনপত্র গৃহীত হইবার সর্বোচ্চ ১৪ (চৌদ্দ) দিনের মধ্যে গ্রাম আদালত
গঠিত হইতে হইবে।
বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬ ১৪৩১
(৪) আদালতের সদস্যগণের নাম পাইবার পর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফরম-২ এ
বর্ণিত মামলা রেজিস্টারের সংশ্লিষ্ট কলামে সদস্যগণের নাম লিপিবদ্ধ করিবেন।
(৫) উপ-বিধি (২) অনুযায়ী মনোনীত আদালতের সদস্যগণকে মামলার শুনানীর জন্য নির্দিষ্ট
তারিখ ও সময়ে উপস্থিত হইবার জন্য মনোনয়নের বিষয়ে অবহিত করিয়া ফরম-৮ এ গ্রাম
আদালতের চেয়ারম্যান অনুরোধপত্র প্রেরণ করিবেন।
(৬) যে ইউনিয়নে অপরাধ সংঘটিত হইয়াছে অথবা মামলার কারণ উদ্ভব হইয়াছে, পক্ষদ্বয় সেই
ইউনিয়নের অধিবাসী না হইলেও উক্ত ইউনিয়নে গ্রাম আদালত গঠিত হইবে।
(৭) মামলার কোন পক্ষ বা পক্ষদ্বয় উক্ত ইউনিয়নের অধিবাসী না হইলে তিনি অথবা তাহারা
নিজ নিজ ইউনিয়ন হইতে আদালতের সদস্য মনোনয়ন করিতে পারিবেন।
১১। লিখিত আপত্তি।(১) গ্রাম আদালত গঠিত হইবার পর, চেয়ারম্যান প্রতিবাদীকে ৩
(তিন) দিনের মধ্যে বিরোধীয় বিষয়ে আবেদনের বিরুদ্ধে তাহার লিখিত আপত্তি দাখিল করিবার জন্য
নির্দেশ প্রদান করিবেন।
(২) প্রতিবাদী কর্তৃক লিখিত আপত্তি দাখিল এর বিষয়টি ঐচ্ছিক বিধায় একই সাথে গ্রাম
আদালতের অপরাপর কার্যμম গ্রহণ করা যাইবে।
১২। গ্রাম আদালতের অধিবেশন।(১) গ্রাম আদালত গঠিত হইবার পর গ্রাম আদালতের
চেয়ারম্যান ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে যে কোন দিনে গ্রাম আদালতের অধিবেশনের তারিখ, সময় ও
স্থান নির্ধারণ করিবেন।
(২) পক্ষগণকে তাহাদের নিজ নিজ মামলার সমর্থনে প্রয়োজনীয় সাক্ষ্য (মৌখিক অথবা
দালিলিক) উপস্থিত করিবার জন্য নির্দেশ প্রদান করিবেন।
১৩। প্রাক বিচার।(১) প্রম অধিবেশনের শুনানী অন্তে বিচার্য বিষয় নির্ধারিত হইলে
আইনের ধারা ৬ক অনুযায়ী প্রাকবিচারের মাধ্যমে বিরোধ নিষ্পত্তির বিষয়টি বিচারক প্যানেল এর পক্ষ
হইতে উভয়পক্ষের নিকট উপস্থাপন করিতে হইবে।
(২) উভয় পক্ষ এইরূপ নিষ্পত্তিতে সম্মত হইলে গ্রাম আদালত আপোষ নিষ্পত্তির উদ্যোগ
গ্রহণ করিবে এবং সেইক্ষেত্রে একই দিনে প্রাক বিচারের মাধ্যমে আপোষনামা সম্পাদন করা যাইবে।
(৩) আপোষ নিষ্পত্তির উদ্যোগ গ্রহণ ও এর প্রতিটি পর্যায় গ্রাম আদালতের উপস্থিতিতে ফরম-
৯ অনুযায়ী সম্পাদন করিতে হইবে এবং এক্ষেত্রে উভয়পক্ষ কারো প্ররোচনা ব্যতীত আপোষে সম্মত
হইয়াছেন মর্মে আপোষনামায় উল্লেখ থাকিবে।
(৪) আপোষনামায় বর্ণিত শর্তাবলী গ্রাম আদালত আইন ও বিধিমালার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ
হইতে হইবে এবং প্রতিবাদী কর্তৃক আবেদনকারীর দাবী মেটানোর শর্তসমূহ অবশ্যই প্রাকবিচারের
আপোষনামা সম্পাদনের তারিখ হইতে ৬ (ছয়) মাসের অধিক হইবে না।
(৫) প্রাকবিচারের উদ্যোগের শুরুতেই ফরম-৯ অনুযায়ী আপোষনামা সম্পাদনপূর্বক বিচার্য
বিষয় নিষ্পত্তি করা হইলে উহার বিরুদ্ধে আপিল বা রিভিশন করা যাইবেনা মর্মে আবেদনকারী ও
প্রতিবাদী পক্ষকে মৌখিকভাবে অবহিত করিতে হইবে।
১৪৩২ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬
১৪। শুনানী মুলতবী।(১) বিধি ১৩ এর উপ-বিধি (৩) অনুযায়ী প্রাক বিচারের মাধ্যমে
নিষ্পত্তি না হইলে আইনে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে মামলাটির বিচার কার্য শুরু করিয়া তাহা সম্পনড়ব
করিতে হইবে।
(২) বিচার কার্য সম্পাদনকালে গ্রাম আদালত পর্যাপ্ত কারণ থাকিলে মামলার শুনানী মূলতবী
করিতে পারিবেন যাহা প্রতিক্ষেত্রে ৭ (সাত) দিনের অধিক হইবে না।
(৩) মামলার যে কোন পক্ষের চাহিদা মোতাবেক গ্রাম আদালতের চেয়ারম্যান মামলার শুনানীর
তারিখ ও নির্ধারিত বিষয় বিবৃত করিয়া ফরম-১১ এ মামলার ¯িøপ প্রদান করিবেন বা করিবার ব্যবস্থা
করিবেন।
১৫। সাক্ষীর প্রতি সমন ও সাক্ষ্য গ্রহণ।(১) সাক্ষীর প্রতি সমন ফরম-৫ অনুযায়ী জারী
করিতে হইবে।
(২) প্রতিটি সমন দুইপ্রস্থে লিখিত এবং চেয়ারম্যান কর্তৃক স্বাক্ষরিত ও মোহরাঙ্কিত হইতে
হইবে।
(৩) প্রতিটি সমন ইউনিয়ন পরিষদের কোন কর্মচারী অথবা ক্ষেত্রমত, চেয়ারম্যান কর্তৃক
এতদুদ্দেশ্যে নিযুক্ত কোন ব্যক্তি জারী করিবেন।
(৪) যে সাক্ষীর প্রতি সমন দেওয়া হয় সমনের একপ্রস্থ তাহাকে অর্পণ করিয়া বা তাহার নিকট
প্রেরণ করিয়া উক্ত সমন তাহার উপর ব্যক্তিগতভাবে জারী করিতে হইবে।
(৫) সমন জারী অন্তে এই কাজের জন্য নিয়োজিত ব্যক্তি সমনের অন্য প্রস্থের উল্টা পৃষ্ঠায় সমন
গ্রহীতার প্রাপ্তিসূচক স্বাক্ষর গ্রহণ করিবেন এবং সংশ্লিষ্ট পক্ষের অনুপস্থিতিতে তিনি বা তাহার
পরিবারের সদস্য বরাবর সমন জারী করা হইলে সমনের অন্য প্রস্থের উল্টা পৃষ্ঠায় সমনগ্রহীতার পক্ষে
প্রাপ্তিসূচক স্বাক্ষর গ্রহণ করিবেন।
(৬) যথাবিহিত চেষ্টা সত্তে¡ও উপ-বিধি (৫) এ বর্ণিত পদ্ধতিতে সমন জারী করা সম্ভব না হইলে
সমন জারীর দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মচারী দুইপ্রস্থ সমনের একপ্রস্থ সমন প্রদত্ত ব্যক্তি সাধারণত যে বাড়ীতে
বসবাস করিয়া থাকেন,উহার কোন প্রকাশ্য স্থানে লটকাইয়া জারী করিবেন যাহাতে উক্ত সমন
যথাবিহিতভাবে জারী করা হইয়াছে বলিয়া গণ্য করা যাইবে।
(৭) যে ব্যক্তিকে সমন প্রদান করা হইয়া থাকে তিনি যদি সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ এলাকার
বাহিরে বসবাস করিয়া থাকেন, তাহা হইলে উক্ত ইউনিয়ন পরিষদ বা গ্রাম আদালতের চেয়ারম্যান
রেজিস্ট্রী ডাকযোগে (প্রাপ্তিস্বীকার পত্রসহ) সমন জারী করাইতে পারিবেন এবং আবেদনকারীকে এই
বাবদ খরচ বহন করিতে হইবে।
(৮) মামলার পক্ষগণ এবং সাক্ষী বা সাক্ষীগণ প্রতিটি শুনানীর তারিখে ফরম-১০ এ বর্ণিত
হাজিরায় স্বাক্ষর বা টিপসহি প্রদান করিবেন।
(৯) গ্রাম আদালতের চেয়ারম্যান সাক্ষীকে সশ্রদ্ধচিত্তে দৃঢ়ভাবে ঘোষণা বা শপথ গ্রহণপূর্বক
বিবৃতি প্রদান করিতে নির্দেশ দিবেন এবং উহার সারমর্ম লিপিবদ্ধ করিবেন বা করাইবেন।
বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬ ১৪৩৩
(১০) গ্রাম আদালতের চেয়ারম্যান অথবা প্যানেলভুক্ত যে কোন সদস্য মামলার পক্ষদ্বয় অথবা
তাহাদের পক্ষের সাক্ষীগণকে প্রশড়ব জিজ্ঞাসা করিতে পারিবেন।
১৬। স্থানীয় পরিদর্শন।গ্রাম আদালত বিচারাধীন যে কোন মামলার যে কোন পর্যায়ে
পক্ষগণের মধ্যে বিবাদের যে কোন বিষয় সম্পর্কে অবগত হইবার জন্য অথবা বিচার কার্য অধিকতর
ন্যায়ানুগ করিবার জন্য প্রয়োজন মনে করিলে স্থানীয়ভাবে পরিদর্শন করিতে পারিবে।
১৭। আবেদনকারীর অনুপস্থিতিতে আবেদন খারিজ, ইত্যাদি।(১) যদি কোন ক্ষেত্রে
আবেদনকারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের নিকট হাজির হইবার জন্য এবং গ্রাম আদালতের
মামলার শুনানীর জন্য নির্ধারিত তারিখে হাজির হইতে ব্যর্থ হন এবং গ্রাম আদালতের চেয়ারম্যানের
নিকট যদি প্রতীয়মান হয় যে, আবেদনকারী মামলা পরিচালনায় অবহেলা করিতেছেন তাহা হইলে
কারণ উল্লেখ করিয়া উক্ত আবেদন খারিজ করিবেন।
(২) উপ-বিধি (১) অনুযায়ী কোন আবেদনপত্র খারিজ হইলে উহা পুনর্বহালের জন্য খারিজ
হওয়ার তারিখ হইতে ১০ (দশ) দিনের মধ্যে আবেদনকারী ক্ষেত্রমত, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান
অথবা চেয়ারম্যানের নিকট লিখিতভাবে আবেদন করিবেন এবং উক্ত আবেদনে উল্লিখিত অনুপস্থিতির
কারণ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অথবা চেয়ারম্যানের নিকট সন্তোষজনক বলিয়া প্রতীয়মান
হইলে মামলাটি পুনর্বহাল করিয়া উহার শুনানীর তারিখ ধার্য করিতে পারিবেন।
(৩) উপ-বিধি (২) অনুযায়ী মামলা পুনর্বহাল করা হইলে উক্ত মামলায় ইতোপূর্বে গ্রাম আদালত
গঠিত হইয়া থাকিলে উহা বহাল রহিয়াছে বলিয়া বিবেচিত হইবে।
(৪) মামলার সকল কার্যμম সম্পনড়ব হইবার পর সিদ্ধান্ত গ্রহণের দিন যদি আবেদনকারী
অনুপস্থিত থাকেন তাহা হইলে গ্রাম আদালত সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও ঘোষণা করিতে পারিবেন অথবা সিদ্ধান্ত
গ্রহণের জন্য পরবর্তী তারিখ নির্ধারণ করিতে পারিবেন।
১৮। প্রতিবাদীর অনুপস্থিতিতে মামলা নিষ্পত্তি, ইত্যাদি।(১) যদি প্রতিবাদী মামলার
শুনানীর জন্য গ্রাম আদালতের নির্ধারিত তারিখে হাজির হইতে ব্যর্থ হন এবং যদি তিনি অবহেলা
প্রদর্শন করিতেছেন বলিয়া চেয়ারম্যানের নিকট প্রতীয়মান হয় তাহা হইলে চেয়ারম্যান প্রতিবাদীর
অনুপস্থিতিতেই মামলার শুনানী এবং নিষ্পত্তি করিতে পারিবেন।
(২) উপ-বিধি (১) অনুযায়ী প্রতিবাদীর অনুপস্থিতিতে কোন মামলার শুনানী হইলে এবং
প্রতিবাদীর বিরুদ্ধে সিদ্ধান্ত গৃহীত হইলে উক্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণের ১০ (দশ) দিনের মধ্যে প্রতিবাদী
চেয়ারম্যানের নিকট লিখিতভাবে আবেদন করিতে পারিবেন।
(৩) উপ-বিধি (২) অনুযায়ী প্রতিবাদীর আবেদন এবং অনুপস্থিতির কারণ চেয়ারম্যানের নিকট
সন্তোষজনক বলিয়া প্রতীয়মান হইলে চেয়ারম্যান মামলাটি পুনর্বহাল করিবেন এবং উহার পুনঃশুনানীর
জন্য তারিখ নির্ধারণ করিবেন।
১৯। গ্রাম আদালতের সিদ্ধান্ত।(১) প্রত্যেক মামলার বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণের পর ফরম-১২
অনুযায়ী চেয়ারম্যান কর্তৃক স্বাক্ষরিত একটি ডিμী প্রদান করা হইবে।
(২) চেয়ারম্যান উক্ত আদালতের প্রত্যেক সিদ্ধান্ত প্রকাশ্য আদালতে ঘোষণা করিবেন।
১৪৩৪ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬
(৩) গ্রাম আদালতের সিদ্ধান্ত সর্বসম্মতিμমে গৃহীত হইলে অথবা সর্বসম্মতিμমে গৃহীত না
হইয়া থাকিলে, তাহা যে সংখ্যাগরিষ্ঠতায় গৃহীত হইয়াছে তাহার অনুপাত উল্লেখপূর্বক ফরম-২ এর
মামলা রেজিস্টারের ১১নং কলামে লিপিবদ্ধ করিতে হইবে।
২০। ডিμী রেজিস্টার, ইত্যাদি।(১) বিধি ১৯ অনুযায়ী গ্রাম আদালত কোন সিদ্ধান্ত গ্রহণ
করিলে চেয়ারম্যান ফরম-১২ এর ডিμি রেজিস্টারের ৭ নং কলামে আদালতের সিদ্ধান্ত লিপিবদ্ধ
করিবেন।
(২) প্রম শ্রেণীর ম্যাজিস্ট্রেট আদালত অথবা সহকারী জজ আদালত কর্তৃক আইনের ধারা ৮
এর উপ-ধারা (৩) অনুযায়ী প্রদত্ত কোন আদেশ যথাযথভাবে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের
চেয়ারম্যানকে জানাইতে হইবে এবং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তদানুযায়ী ফরম-১২ এর ডিμী
রেজিস্টারে উক্ত প্রয়োজনীয় বিষয়াদি সেই মর্মে লিপিবদ্ধ করিয়া ডিμী বা আদেশ সংশোধন করিবেন।
২১। আপীলের আবেদন।(১) আইনের ধারা ৮ এর উপ-ধারা (২) অনুযায়ী আপীলের
আবেদন আবেদনকারী কর্তৃক লিখিত এবং স্বাক্ষরিত হইতে হইবে এবং উহাতে পক্ষগণের নাম,
পরিচয় ও ঠিকানা এবং আবেদনের কারণসমূহের সংক্ষিপ্ত বিবরণ থাকিতে হইবে।
(২) আবেদনপত্রের সহিত গ্রাম আদালত কর্তৃক প্রদত্ত ডিμী বা আদেশের একটি অনুলিপি
সংযুক্ত করিতে হইবে এবং অনুলিপিটি চেয়ারম্যানের নিজ স্বাক্ষরে প্রত্যায়িত হইতে হইবে।
(৩) আইনের ধারা ৮ এর উপ-ধারা (২) অনুযায়ী দাখিলকৃত আপীল আবেদন ফৌজদারী
মামলার এখতিয়ার সম্পনড়ব জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এবং দেওয়ানী মামলার এখতিয়ার সম্পনড়ব
সহকারী জজ আদালতে ৩০ (ত্রিশ) দিনের মধ্যে দায়ের করিতে হইবে।
২২। ক্ষতিপূরণের অর্থ প্রদান।(১) গ্রাম আদালত যে মেয়াদ নির্ধারণ করিবে সেই মেয়াদের
মধ্যে ডিμী বা ক্ষতিপূরণের অর্থ প্রদান করিতে হইবে, কিন্তু কোনμমেই উক্ত মেয়াদ চূড়ান্ত আদেশ
প্রদানের তারিখ হইতে ৬ (ছয়) মাসের অধিক হইবে না।
(২) উপ-বিধি (১) অনুযায়ী প্রাপ্ত ক্ষতিপূরণের অর্থ ফরম-১৩ অনুযায়ী ক্ষতিপূরণের অর্থ
লেনদেন রেজিস্টারে লিপিবদ্ধ করিতে হইবে।
২৩। নথিপত্র দেখা।চেয়ারম্যান অথবা উক্ত বিরোধীয় বিষয়ে কোন গ্রাম আদালত না থাকিলে,
ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিবাদের কোন পক্ষের আবেদনμমে উক্ত পক্ষ হইতে ২০ (বিশ) টাকা
হারে ফিস গঙহণμমে গ্রাম আদালতের বিবাদ সম্পর্কিত নথিপত্র দেখিবার অনুমতি প্রদান করিবেন।
২৪। নকল সরবরাহ।(১) চেয়ারম্যান অথবা উক্ত বিরোধীয় বিষয়ে কোন গ্রাম আদালত না
থাকিলে, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিবাদের কোন পক্ষের আবেদনμমে উক্ত পক্ষকে প্রতি পৃষ্ঠা
বা উহার অংশ বিশেষের জন্য ৫ (পাঁচ) টাকা হারে ফিস প্রদানের পর, সংশ্লিষ্ট নথিপত্র অথবা এই
বিধিমালা অনুযায়ী রক্ষিত কোন রেজিস্টারে অন্তর্ভুক্ত কোন বিষয় বা উহার অংশ বিশেষের নকল বা
ফটোকপি সরবরাহ করিবেন।
(২) সরবরাহকৃত নকল বা ফটোকপিতে চেয়ারম্যান অথবা উক্ত বিরোধীয় বিষয়ে কোন গ্রাম
আদালত না থাকিলে, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান স্বাক্ষর করিবেন এবং আদালতের সীলমোহর
ব্যবহার করিবেন।
বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬ ১৪৩৫
২৫। রসিদ প্রদান, ইত্যাদি।(১) আইনের ধারা ৯ এবং ধারা ১১ অনুযায়ী কোন জরিমানা
প্রদান করা হইলে বা ধারা ১২ অনুযায়ী তাহা আদায় করা হইলে অথবা এই বিধিমালা অনুযায়ী কোন
ফিস আদায় করা হইলে, ফরম-১৪ অনুযায়ী μমিক ন¤¦র সম্বলিত উহার একটি রসিদ প্রদান করিতে
হইবে এবং উহার মুড়িপত্র ইউনিয়ন পরিষদের অফিসে জমা রাখিতে হইবে।
(২) প্রাপ্ত সকল জরিমানা ও ফিস ফরম-১৫ এর ফিস বা জরিমানা রেজিস্টারে লিপিবদ্ধ করিতে
হইবে।
(৩) এই বিধিমালা অনুযায়ী প্রদেয় সকল ফিস ইউনিয়ন পরিষদের তহবিলের অন্তর্ভুক্ত হইবে।
২৬। ইউনিয়ন পরিষদ ডাক রেজিস্টার।(১) গ্রাম আদালত সংμাšও সমন এবং অন্যান্য
চিঠিপত্রের যথাযথ রেকর্ড সংরক্ষণের জন্য ফরম-১৬ অনুযায়ী ইউনিয়ন পরিষদ পত্র প্রদান রেজিস্টারে
লিপিবদ্ধ করিতে হইবে।
(২) গ্রাম আদালতের প্রতিটি সমন ইস্যু, জারী ও চিঠিপত্রের প্রয়োজনীয় বিবরণী উহাতে
অন্তর্ভুক্ত হইবে।
২৭। অভিযোগ গ্রহণ এবং নিষ্পত্তির প্রতিবেদন।(১) ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রতি
৩ (তিন) মাস অন্তর ফরম-১৭ অনুযায়ী অভিযোগ গ্রহণ, নিষ্পত্তি ও অপেক্ষমান সংμাšও প্রতিবেদন
পরবর্তী মাসের ১০ (দশ) তারিখের মধ্যে সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট দাখিল
করিবেন।
(২) উপ-বিধি (১) অনুযায়ী প্রাপ্ত প্রতিবেদন পর্যালোচনাμমে সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসার
মামলার নিষ্পত্তির পর্যাপ্ততা নিরূপণ করিবেন এবং নিষ্পত্তি অপর্যাপ্ত হইলে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ
চেয়ারম্যানকে মামলা দ্রæত নিষ্পত্তি করিবার নির্দেশনা প্রদান করিবেন।
(৩) উপ-বিধি (১) অনুযায়ী ইউনিয়ন পরিষদ হইতে প্রাপ্ত ত্রৈমাসিক প্রতিবেদন সমন্বিত করিয়া
সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসার একই মাসের বিশ (২০) তারিখের মধ্যে উপ-পরিচালক,
উপ-পরিচালক, স্থানীয় সরকার বিভাগ (ডিডিএলজি) বরাবর ফরম-১৮ অনুযায়ী ১ (এক) টি ত্রৈমাসিক
প্রতিবেদন প্রস্তুত করিয়া প্রেরণ করিবেন।
(৪) উপ-পরিচালক, স্থানীয় সরকার বিভাগ সংশ্লিষ্ট জেলার সকল উপজেলা হইতে প্রাপ্ত
ত্রৈমাসিক প্রতিবেদন সমন্বিত করিয়া ফরম-১৯ অনুযায়ী একই মাসের ৩০ (ত্রিশ) তারিখের মধ্যে
স্থানীয় সরকার বিভাগ, স্থানীয় সরকার, পল্লী উনড়বয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় বরাবর প্রেরণ করিবেন এবং
সার্বিক অবগতির জন্য উক্ত প্রতিবেদনের অনুলিপি জেলা প্রশাসক এবং জেলা জজ বরাবরে প্রেরণ
করিবেন।
২৮। রেজিস্টারের বিষয়সমূহের μমিক নং।(১) আবেদনপত্র গ্রহণ এবং ডিμী বা আদেশ
প্রদানের μমানুসারে মামলার রেজিস্টারের এবং ডিμী ও আদেশের রেজিস্টারে লিপিবদ্ধ বিষয়সমূহের
μমিক নং এর সাথে বৎসরের উল্লেখ থাকিবে।
(২) প্রত্যেক বৎসরে নূতন করিয়া μমিক নং প্রদান শুরু করিতে হইবে।
১৪৩৬ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬
২৯। রেজিস্টার ও নথিপত্র সংরক্ষণ।(১) গ্রাম আদালতের সকল নথিপত্র এবং রেজিস্টার
ইউনিয়ন পরিষদের অফিসে সংরক্ষিত হইবে।
(২) রেজিস্টারসমূহ ১০ (দশ) বৎসর ও অন্যান্য নথিপত্র ৩ (তিন) বৎসর পর্যন্ত সংরক্ষিত
থাকিবে।
৩০। গ্রাম আদালতের চেয়ারম্যান অপসারণ, ইত্যাদি।(১) গ্রাম আদালত রায় প্রদান
করিবার পূর্বে যে কোন সময়ে আইনের ধারা ৫ এর উপ-ধারা (২) এ বর্ণিত কোন কারণে ইউনিয়ন
পরিষদের চেয়ারম্যান বা প্যানেল চেয়ারম্যান চেয়ারম্যান হিসাবে কাজ করিতে অসমর্থ হইলে অথবা
তাহার নিরপেক্ষতা সম্পর্কে কোন পক্ষ কর্তৃক আপত্তি উত্থাপিত হইলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার উক্ত
বিষয়ে কোন পক্ষের লিখিত আবেদন প্রাপ্তির পর তাহার বিবেচনায় আবেদনে বর্ণিত বিষয় যথার্থ
বলিয়া প্রতীয়মান হইলে ইউনিয়ন পরিষদের যে কোন সদস্যকে (বিবাদের কোন পক্ষের মনোনীত
সদস্য নহেন) চেয়ারম্যান হিসাবে কাজ করিবার জন্য নিয়োগ প্রদান করিবেন।
(২) উপ-বিধি (১) অনুযায়ী গ্রাম আদালতের চেয়ারম্যান নিযুক্ত না হওয়া পর্যন্ত উপজেলা
নির্বাহী অফিসার সংশ্লিষ্ট মামলার ক্ষেত্রে গ্রাম আদালতের কার্যধারা ৭ (সাত) দিন পর্যন্ত স্থগিত রাখিতে
পারিবেন।
(৩) উপ-বিধি (১) অনুযায়ী নিযুক্ত চেয়ারম্যানের নাম ফরম-২ এ মামলা রেজিস্টারে লিপিবদ্ধ
করিতে হইবে।
৩১। দাবী বা বিবাদ স্বীকার।(১) সমনপ্রাপ্ত হইয়া অথবা অন্য কোন ভাবে অবহিত হইয়া
প্রতিবাদী ইউনিয়ন পরিষদে উপস্থিত হইয়া দাবী বা বিবাদ স্বীকার করিলে এবং ইউনিয়ন পরিষদের
চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে উক্ত দাবী পূরণ করিলে গ্রাম আদালত গঠন করা হইবে না।
(২) উপ-বিধি (১) অনুযায়ী প্রতিবাদী কর্তৃক দাবী বা বিবাদ স্বীকার করা হইলে এবং উক্ত দাবী
পূরণ করা হইলে এই বিষয়ে ইউনিয়ন পরিষদ প্রয়োজনীয় রেকর্ড সংরক্ষণ করিবেন এবং ফরম-১৩
অনুযায়ী ক্ষতিপূরণের অর্থ লেনদেন রেজিস্টারে উহা লিপিবদ্ধ করিবেন।
৩২। সিদ্ধান্ত পুনর্বিচারের জন্য ফেরত পাঠানো।(১) কোন মামলার সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার
জন্য আইনের ধারা ৮ এর উপÑধারা (২) অনুযায়ী জুডিসিয়াল ম্যজিস্ট্রেট আদালত বা সিনিয়র
জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত বা সহকারী জজ আদালত বা সিনিয়র সহকারী জজ আদালত এর
নিকট আপিলের পরিপ্রেক্ষিতে জুডিসিয়াল ম্যজিস্ট্রেট আদালত বা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট
আদালত বা সহকারী জজ আদালত বা সিনিয়র সহকারী জজ আদালত কর্তৃক উক্ত মামলাটি
পুনর্বিবেচনার জন্য ইউনিয়ন পরিষদে পাঠানো হইলে মামলাটি একই নম্বরে প্রতিস্থাপিত করিয়া
অবিলম্বে উহার বিচার শুরু করিতে হইবে।
(২) উপ-বিধি (১) অনুযায়ী আপীল আদালতের আদেশের সারাংশ ফরম-২ অনুযায়ী মামলার
রেজিস্টারের ১২ নম্বর কলামে লিপিবদ্ধ করিতে হইবে।
৩৩। বিচারাধীন মামলা উচ্চ আদালত হইতে গ্রাম আদালতে প্রেরণ।(১) মামলার অভিযোগ
শুনানীর সময় কোন আদালতের নিকট যদি সন্তোষজনকভাবে প্রতীয়মান হয় যে মামলাটি গ্রাম
আদালতে বিচার্য তাহা হইলে সংশ্লিষ্ট আদালত মামলাটি গ্রাম আদালতে প্রেরণ করিতে পারিবেন।
বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬ ১৪৩৭
(২) উপ-বিধি (১) অনুযায়ী মামলা গ্রাম আদালতে প্রেরণ করিবার সময় উক্ত মামলায় কোন
সমন জারী থাকিলে তাহা প্রত্যাহার করিবেন এবং মামলাটি গ্রাম আদালতে প্রেরিত হইয়াছে মর্মে
সংশ্লিষ্ট সকলকে অবহিত করিবেন।
(৩) উপ-বিধি (২) এর আওতায় কোন মামলা গ্রাম আদালতে বিচারের জন্য প্রেরণ করা হইলে
সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ মামলার আবেদনকারীর নিকট হইতে কোন প্রকার ফি গ্রহণ করিবেন না।
৩৪। জরিমানা ও ক্ষতিপূরণের অর্থ আদায়ের পদ্ধতি।(১) আইনের ধারা ৯ এর উপ-ধারা
(৩) অনুযায়ী গ্রাম আদালতের মামলা ডিμি অথবা সিদ্ধান্তমূলে আদায়যোগ্য অর্থ ইউনিয়ন পরিষদের
বকেয়া কর আদায়ের পদ্ধতিতে স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন, ২০০৯ এর অধীনে
আদায়যোগ্য হইবে।
(২) উপ-বিধি (১) অনুযায়ী অনুরোধপত্র প্রাপ্ত হইলে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান স্থানীয়
সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন, ২০০৯ এর ধারা ৬৮ এর বিধান অনুযায়ী অনুরোধপত্রে উল্লিখিত
অর্থ আদায় করিবেন এবং অনুরোধপত্র গ্রহণের ৩০ (ত্রিশ) দিনের মধ্যে আদায়কৃত অর্থ সংশ্লিষ্ট গ্রাম
আদালতে প্রেরণ করিবেন।
(৩) উপ-বিধি (২) অনুযায়ী প্রেরিত অর্থ উহা গ্রহণের ৭ (সাত) দিনের মধ্যে চেয়ারম্যান
সংশ্লিষ্ট ক্ষতিগ্রস্ত পক্ষকে প্রদান করিবেন।
(৪) উপ-বিধি (২) অনুযায়ী প্রাপ্ত অর্থ ফরম-১৩ তে রক্ষিত গ্রাম আদালতের ক্ষতিপূরণের অর্থ
লেনদেন রেজিস্টারে জমা করিতে হইবে এবং ৭ (সাত) দিনের মধ্যে ক্ষতিপূরণের অর্থ উল্লিখিত
রেজিস্ট্রারের নির্ধারিত কলামে স্বাক্ষীর সম্মুখে ক্ষতিগ্রস্ত পক্ষের ও স্বাক্ষীর স্বাক্ষর গ্রহণপূর্বক ক্ষতিগ্রস্ত
পক্ষকে প্রদান করিতে হইবে।
(৫) উপ-বিধি (২) অনুযায়ী অনুরোধপত্র পাওয়ার পর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান যদি ৩০
(ত্রিশ) দিনের মধ্যে উক্ত অর্থ আদায় করিতে অসমর্থ হন তাহা হইলে ব্যর্থতার কারণ উল্লেখ করিয়া
তিনি উক্ত অর্থ স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন, ২০০৯ এর ধারা ৬৮ এর উপ-ধারা (২)
অনুসারে সরকারি দাবী হিসাবে আদায়ের জন্য সার্টিফিকেট অফিসার (উপজেলা নির্বাহী অফিসার) বা
সার্টিফিকেট অফিসার হিসাবে দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তির নিকট ফরম-২০ অনুযায়ী দাবী পেশ করিবেন।
(৬) উপ-বিধি (২) অনুযায়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আদায়কৃত অর্থ গ্রাম আদালতের
অর্থ লেনদেন রেজিস্টারে অন্তর্ভুক্ত করিয়া মামলার আবেদনকারীকে তাৎক্ষণিক ভাবে প্রদান করিবেন।
(৭) আবেদনকারী বা তাহার মনোনীত প্রতিনিধির পক্ষে যদি ক্ষতিপূরণের অর্থ তাৎক্ষণিকভাবে
গ্রহণ করা সম্ভব না হয় সেক্ষেত্রে চেয়ারম্যান তাহা ইউনিয়ন পরিষদের তহবিলে জমা করিয়া
আবেদনকারীকে অবহিত করিবেন।
(৮) এইরূপে অবহিত হইবার পর আবেদনকারী বা তাহার মনোনীত প্রতিনিধি ইউনিয়ন
পরিষদে সশরীরে উপস্থিত হইয়া ক্ষতিপূরণের অর্থ গ্রহণ করিবেন।
(৯) জরিমানার অর্থ প্রাপ্ত হইলে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান উহা ইউনিয়ন পরিষদের
তহবিলে জমা করিবেন।
১৪৩৮ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬
৩৫। মিথ্যা মামলা দায়েরের জরিমানা।(১) আইনের ধারা ৯ক অনুসারে কোন প্রকার শাস্তি
প্রদানের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট আবেদনকারী হয়রানি বা ক্ষতিসাধনের অভিপ্রায়ে প্রতিবাদীর বিরুদ্ধে মামলা
দায়ের করিয়াছেন কিনা তাহা আদালতের নিকট সুস্পষ্টভাবে প্রতীয়মান হইতে হইবে।
(২) এক্ষেত্রে ন্যায্য ও যুক্তিসংগত কারণ না থাকা সত্তে¡ও আবেদনকারী মিথ্যা তথ্য
উপস্থাপনপূর্বক প্রতিবাদীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করিয়াছেন তাহা নিশ্চিত হওয়া সাপেক্ষে
আবেদনকারীর অভিযোগ খারিজ করিয়া তাহার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়েরের জন্য জরিমানা আরোপ
করা যাইবে।
(৩) উপ-বিধি (২) অনুযায়ী দায়েরকৃত মামলার যথার্থতা প্রমাণ করিতে ব্যর্থ হইলে মামলা
খারিজ বলিয়া গণ্য হইবে।
৩৬। ফৌজদারী আদালতে মামলা প্রেরণ।গ্রাম আদালত যদি মনে করেন যে গ্রাম আদালতে
বিচারাধীন কোন ফৌজদারী মামলার প্রতিবাদীর অপরাধ গুরুতর এবং সুবিচারের উদ্দেশ্যে উক্ত ব্যক্তির
শাস্তি হওয়া উচিত, তাহা হইলে গ্রাম আদালত উক্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণের ৭ (সাত) দিনের মধ্যে ফরম-২১
অনুযায়ী মামলাটি এখতিয়ারসম্পনড়ব প্রম শ্রেণীর ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে প্রেরণ করিবেন।
৩৭। গ্রাম আদালতের ফরম ও ফরমেট ব্যবহারের ক্ষেত্রে নির্দেশনা।এই বিধিমালায় বর্ণিত
ফরম ও ফরমেটসমূহ ছাপানো বা মুদ্রিত আকারে অথবা হুবহু অনুসরণμমে সাদা কাগজে রেজিস্টার
আকারে ব্যবহার করা যাইবে।
৩৮। গ্রাম আদালতের সীলমোহর, ইত্যাদি।(১) প্রত্যেক ইউনিয়ন পরিষদের অফিসে গ্রাম
আদালতের একটি সীলমোহর রাখিতে হইবে যাহা গোলাকার এবং উহা “গ্রাম আদালত” ও
""............ইউনিয়ন পরিষদ'' এর নামাঙ্কিত হইতে হইবে।
(২) এই বিধিমালা অনুযায়ী প্রদত্ত সকল আদেশ, ডিμী, নকল এবং অন্যান্য দলিলপত্রে গ্রাম
আদালতের সীলমোহর ব্যবহার করিতে হইবে।
বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬ ১৪৩৯
ফরম-১
[ বিধি ৩ দ্রষ্টব্য ]
১। আবেদনকারীর নাম : ....................................................................................
২। আবেদনকারীর পিতার নাম : ........................................................................
৩। আবেদনকারীর মাতার নাম : .........................................................................
৪। আবেদনকারীর স্বামী/স্ত্রীর নাম : .....................................................................
৫। আবেদনকারীর জাতীয় পরিচয় পত্র নং : ...........................................................
৬। প্রতিবাদীর নাম : ......................................................................................
৭। প্রতিবাদীর পিতার নাম : .............................................................................
৮। প্রতিবাদীর মাতার নাম : .............................................................................
৯। স্বাক্ষীর নাম : .........................................................................................
১০। স্বাক্ষীর পিতার নাম : .................................................................................
১১। স্বাক্ষীর মাতার নাম : .................................................................................
১২। স্বাক্ষীর স্বামী/স্ত্রীর নাম : .............................................................................
১৩। স্বাক্ষীর জাতীয় পরিচয় পত্র নং : ...................................................................
১৪। ইউনিয়নের নাম : ....................................................................................
১৫। বিরোধীয় বিষয় : ....................................................................................
১৬। প্রার্থিত প্রতিকার : ..................................................................................
(আবেদনকারীর স্বাক্ষর বা টিপসহি)
[ প্রয়োজনে অতিরিক্ত কাগজ সংযুক্ত করা যাইবে। ]
১৪৪০ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬
ফরম-২
[ বিধি ৫(২), ৫(৪), ১০(৪), ১৯(৩), ৩০(৩), ৩২(২) দ্রষ্টব্য ]
মামলার রেজিস্টার
.................. ইউনিয়ন পরিষদ
বৎসর মামলার
নম্বর
মামলা
গ্রহণের
তারিখ
আবেদনকারীর
নাম, ঠিকানা ও
পরিচয়
প্রতিবাদীর নাম,
ঠিকানা ও
পরিচয়
আবেদনকারীর
সদস্যগণের
নাম
প্রতিবাদীর
সদস্যগণের
নাম
গ্রাম আদালতের
চেয়ারম্যান এর
নাম
বিরোধের বিষয়বস্তু ও
উহার মূল্যমান
প্রতিবাদীর
আপত্তি থাকিলে
উহার সারাংশ
সিদ্ধান্ত গ্রহণের
ক্ষেত্রে সংখ্যা
গরিষ্ঠতার অনুপাত
উচ্চ আদালতের কোন
আদেশ থাকিলে উহার
সারাংশ এবং তারিখ
মন্তব্য
১ ২ ৩ ৪ ৫ ৬ ৭ ৮ ৯ ১০ ১১ ১২ ১৩
১৪৪০ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্তি, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬
বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬ ১৪৪১
ফরম-৩
[ বিধি ৫ (২) দ্রষ্টব্য ]
মামলার আদেশনামা
........................................................... ইউনিয়ন পরিষদ/গ্রাম আদালত
উপজেলাঃ..................................... জেলাঃ.................................................
মামলা নম্বর ঃ..................................... মামলার ধরন ঃ...............................
আবেদনকারী ঃ............................................... প্রতিবাদীঃ.............................
আদেশ নং
ও তারিখ
আদেশের বিবরণ চেয়ারম্যানের
স্বাক্ষর
১৪৪২ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬
ফরম-৪
[ বিধি ৮ (১) দ্রষ্টব্য ]
প্রতিবাদীর প্রতি সমন
...................................................................................................ইউনিয়ন পরিষদ
উপজেলাঃ ......................................... জেলাঃ .....................................................
বরারর
.................................................................
.................................................................
যেহেতু...............................এর............................সংμাšও অভিযোগ/দাবী সম্পর্কে তাহার
আবেদনপত্রের জবাব দেওয়ার জন্য আপনার উপস্থিতি প্রয়োজন; সেইহেতু, এতদ্বারা আপনাকে
.................... সালের .................. মাসের ...............তারিখ .......... টার সময় আমার নিকট
হাজির হইতে নির্দেশ দেওয়া গেল।
তাং............................ ................................
সীলমোহর.................... গ্রাম আদালত/ইউনিয়ন পরিষদ এর
চেয়ারম্যানের স্বাক্ষর
বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬ ১৪৪৩
ফরম-৫
[ বিধি ১৫ (১) দ্রষ্টব্য ]
সাক্ষীর প্রতি সমন
................................................ ইউনিয়ন পরিষদ এর গ্রাম আদালতের .....................নং
মামলায় .......................................... আবেদনকারী বনাম .........................................
প্রতিবাদী।
বরাবর
.................................................................
................................................................
যেহেতু উপরি-উল্লিখিত মামলার আবেদনকারী/প্রতিবাদীর পক্ষে কতিপয় বিষয়ে সাক্ষ্য দেওয়া এবং/
অথবা নিমেড়ববর্ণিত দলিলপত্র পেশ করিবার জন্য আপনার উপস্থিতি আবশ্যক; সেইহেতু এতদ্বারা
আপনাকে .................... সালের ....................... মাসের .......... তারিখে .......... ঘটিকায়
ব্যক্তিগতভাবে নিমড়বলিখিত দলিলপত্রসহ এই আদালত সমক্ষে হাজির হইবার জন্য নির্দেশ দেওয়া
গেল।
১।...............................................................................................................
২।...............................................................................................................
৩।...............................................................................................................
আইন সঙ্গত কারণ ব্যতিরেকে আপনি যদি এই আদেশ পালনে ব্যর্থ হন, তাহা হইলে গ্রাম আদালত
আইন ২০০৬ এবং গ্রাম আদালত (সংশোধন) আইন ২০১৩ এর বিধানাবলী মোতাবেক আপনি অর্থ
দÐে দÐনীয় হইবেন।
তারিখ...................................... ..................................
সীলমোহর .............................................. গ্রাম আদালতের
চেয়ারম্যানের স্বাক্ষর
১৪৪৪ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬
ফরম-৬
[ বিধি ১০ (১) দ্রষ্টব্য ]
সদস্য মনোনয়নের নির্দেশনামা
........................................................ ইউনিয়ন পরিষদ
উপজেলাঃ....................................................
জেলাঃ........................................................
বরাবর
নামঃ ................................................................................ (আবেদনকারী/প্রতিবাদী)
পিতা/স্বামীর নামঃ ...............................................................................................
গ্রামঃ ........................................................... ডাকঘরঃ .......................................
ইউনিয়নঃ ............................ উপজেলাঃ ............................ জেলাঃ .........................
বিষয় ঃ গ্রাম আদালতের সদস্য মনোনয়নের নির্দেশ।
আপনার অবগতির জন্য জানানো যাইতেছে যে, ................................................আবেদনকারী
বনাম ..................................................প্রতিবাদী, মামলার ধরন.................................
সংμাšও দরখা¯ত/নালিশের পরিপ্রেক্ষিতে গ্রাম আদালত গঠন করা আবশ্যক।
উক্ত গ্রাম আদালত গঠনের লক্ষ্যে এই নোটিশ প্রাপ্তির ৭ (সাত) দিনের মধ্যে গ্রাম আদালত গঠনের
জন্য দুইজন সদস্য (একজন ইউনিয়ন পরিষদ মেম্বার ও অন্যজন স্থানীয় ব্যক্তি) মনোনীত করিয়া
তাহাদের নাম ও সম্পূর্ণ ঠিকানা নিমড়ব স্বাক্ষরকারীর দপ্তরে হাতে হাতে অথবা রেজিঃ ডাকযোগে প্রেরণ
করিবার জন্য আপনাকে নির্দেশ দেওয়া হইল।
আদেশμমে,
স্মারক নং ......................... চেয়ারম্যান
তারিখঃ ............................. ...................................ইউনিয়ন
পরিষদ
মামলার নম্বর:
দায়েরের তারিখ:
মামলার ধরন :
বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬ ১৪৪৫
ফরম-৭
[ বিধি ১০ (২) দ্রষ্টব্য ]
গ্রাম আদালতের সদস্য মনোনয়ন ফরম
বরাবর
চেয়ারম্যান
....................................................... ইউনিয়ন পরিষদ
উপজেলাঃ...............................................................
জেলাঃ ...................................................................
বিষয়ঃ গ্রাম আদালতের সদস্য মনোনয়ন প্রসঙ্গে।
সূত্রঃ মামলা নং ............................................ তারিখঃ...............................................
সবিনয়ে আপনার অবগতির জন্য জানাইতেছি যে, আবেদনকারী ............................................
................................................... বনাম প্রতিবাদী .......................................... ধরন
..................................... সংμাšও বিরোধের প্রেক্ষিতে গঠিতব্য গ্রাম আদালতে আমার পক্ষে
নিমেড়ববর্ণিত ব্যক্তিগণকে সদস্য হিসাবে মনোনীত করিলাম।
ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য স্থানীয় ব্যক্তি
নাম ঃ......................................
পিতা/স্বামী ঃ............................
গ্রাম ঃ .................................
ওয়ার্ড নং ঃ ...............................
ডাকঘর ঃ .................................
ইউনিয়ন ঃ ................................
জেলা ঃ...................................
নাম ঃ......................................
পিতা/স্বামী ঃ ............................
গ্রামঃ ....................................
ওয়ার্ড নং ঃ ...............................
ডাকঘর ঃ .................................
ইউনিয়ন ঃ................................
জেলা ঃ ...................................
অতএব, মহোদয়ের নিকট আবেদন এই যে, উল্লিখিত ব্যক্তিগণকে আমার মনোনীত সদস্য হিসাবে
গ্রহণ করিয়া বাধিত করিবেন।
আপনার বিশ্বস্ত (আবেদনকারী/ প্রতিবাদী)
স্বাক্ষর:........................................................................................................
নাম :..........................................................................................................
তারিখ: ............................................................
১৪৪৬ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬
ফরম-৮
[ বিধি ১০ (৫) দ্রষ্টব্য ]
গ্রাম আদালতে সদস্য উপস্থিতির অনুরোধ পত্র
.................................................................................. ইউনিয়ন পরিষদ/গ্রাম আদালত
উপজেলাঃ ............................................ জেলাঃ ....................................................
বিষয়ঃ গ্রাম আদালতের মনোনীত সদস্য হিসাবে উপস্থিতির জন্য অনুরোধ পত্র।
আপনাদের অবগতির জন্য জানানো যাইতেছে যে, আবেদনকারী
........................................................বনাম প্রতিবাদী.............................................
মামলার ধরন.............................. মামলা নং..................... এর বিচার কার্য পরিচালনার জন্য
আপনাদেরকে সদস্য মনোনীত করা হইয়াছে। আগামী .................. তারিখ রোজ...................
বার বেলা ............. টায় উক্ত মামলার শুনানীর সময় ধার্য করা হইয়াছে।
আবেদনকারী কর্তৃক মনোনীত সদস্য
ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য স্থানীয় ব্যক্তি
নামঃ.......................................
পিতা/স্বামীঃ ..............................
গ্রামঃ ......................................
ওয়ার্ড নং .................................
ডাকঘরঃ ..................................
ইউনিয়নঃ .................................
জেলাঃ.....................................
নামঃ.......................................
পিতা/স্বামীঃ ..............................
গ্রামঃ ......................................
ওয়ার্ড নং .................................
ডাকঘরঃ ..................................
ইউনিয়নঃ .................................
জেলাঃ.....................................
প্রতিবাদী কর্তৃক মনোনীত সদস্য
ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য স্থানীয় ব্যক্তি
নামঃ......................................
পিতা/স্বামীঃ .............................
গ্রামঃ .....................................
ওয়ার্ড নং.................................
ডাকঘরঃ .................................
ইউনিয়নঃ ................................
জেলাঃ....................................
নামঃ.......................................
পিতা/স্বামীঃ ..............................
গ্রামঃ ......................................
ওয়ার্ড নং .................................
ডাকঘরঃ ..................................
ইউনিয়নঃ .................................
জেলাঃ.....................................
আগামী......................... তারিখ................... বার.................... টায় উক্ত মামলার শুনানীতে
উপস্থিত হইয়া বিচার কার্যে অংশ নেওয়ার জন্য আপনাদেরকে বিশেষভাবে অনুরোধ করা হইল।
চেয়ারম্যান
........................... ইউনিয়ন পরিষদ
স্মারক নং ...........................
তারিখ ঃ..............................
বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬ ১৪৪৭
ফরম-৯
[ বিধি ১৩ (৩) দ্রষ্টব্য ]
আপোষনামা
(প্রযোজ্য ক্ষেত্রে টিক চিহ্ন দিন)
বরাবর
চেয়ারম্যান
................................................................................. ইউনিয়ন পরিষদ/গ্রাম আদালত
উপজেলাঃ....................................................... জেলাঃ ..........................................
বিষয়ঃ আপোষে বিরোধ নিষ্পত্তি
আপনার অবগতির জন্য জানানো যাইতেছে যে, আবেদনকারী ....................................... বনাম
প্রতিবাদী ...........................এর ................. নং মামলা, ধরনঃ ................সংμাšও বিরোধীয়
বিষয়টি নিমড়বলিখিত শর্তসাপেক্ষে ও সাক্ষীর উপস্থিতিতে আপোষ-নিষ্পত্তি হইয়াছে ।
শর্তাবলীঃ
১. ..................................................................................................................
২. ..................................................................................................................
৩. ..................................................................................................................
৪. ..................................................................................................................
মনোনীত প্রতিনিধি/সাক্ষীর নামঃ স্বাক্ষরঃ
১. ......................................................................
২. ......................................................................
৩. ......................................................................
৪. ......................................................................
এমতাবস্থায় উক্ত মামলাটি আপোষ সূত্রে নিষ্পত্তি করিবার জন্য অনুরোধ করিতেছি।
নিবেদক,
স্বাক্ষর স্বাক্ষরঃ
আবেদনকারীর নামঃ প্রতিবাদির নামঃ
পিতা/স্বামীর নামঃ পিতা/স্বামীর নামঃ
মাতার নামঃ মাতার নামঃ
ঠিকানাঃ ঠিকানাঃ
তারিখঃ তারিখঃ
১৪৪৮ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬
ফরম-১০
[ বিধি ১৫ (৮) দ্রষ্টব্য ]
মামলার হাজিরা
(আবেদনকারী, প্রতিবাদী ও সাক্ষীর হাজিরা)
........................................................................................ ইউনিয়ন/গ্রাম আদালত।
উপজেলাঃ .......................................... জেলাঃ .......................................................
মামলার নম্বরঃ .................. মামলার ধরনঃ ................. মামলা গ্রহণের তারিখঃ .................
তারিখ নাম ধরন
(আবেদনকারী/প্রতিবাদী/সাক্ষী)
স্বাক্ষর
বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬ ১৪৪৯
ফরম-১১
[ বিধি ১৪ (৩) দ্রষ্টব্য ]
মামলার সিøপ
.......................................................................................... ইউনিয়ন/গ্রাম আদালত
মামলা নং- .....................................দায়েরের তারিখঃ................................................
আবেদনকারী .......................................................................................................
প্রতিবাদী.............................................................................................................
মামলার আগামী তারিখ (প্রতিবাদীর জবাব প্রদানের জন্য/সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য/আপোষ-নিষ্পত্তির জন্য/
শুনানীর জন্য/সিদ্ধান্ত ঘোষণার জন্য/...................................................................)
বার................................................... সময় ........................................................
স্থান...................................................................................................................
.
.............................................
আদালত সহকারী/সচিব
.........................ইউনিয়ন পরিষদ
১৪৫০ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬
ফরম-১২
[ বিধি ১৯ (১) ও ২০(১) দ্রষ্টব্য ]
ডিμী বা আদেশের ফরম
........................................................ ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম আদালতে ১ নম্বর ফরমের
...................... নম্বর মামলা, ধরন ...............................।
আবেদনকারীঃ..................................................................................বনাম প্রতিবাদীঃ
......................................................................................................................
.........................................................................................................-এর দাবী।
অদ্য আবেদনপত্রখানি চূড়ান্ত নিষ্পত্তির জন্য অত্র গ্রাম আদালত সমক্ষে উপস্থিত হওয়ায় আমরা
সর্বসম্মতিμমে/ ....................................জনের সংখ্যাগরিষ্ঠতায় আদেশ প্রদান করিতেছি যে,
.......................................................................................................................
........................................................................................................................
........................................................................................................................
সিদ্ধান্তের পক্ষে সিদ্ধান্তের বিপক্ষে
নাম স্বাক্ষর নাম স্বাক্ষর
১.
২.
৩.
৪.
৫.
তারিখ ঃ............................ .........................................
সীলমোহর........................ গ্রাম আদালতের চেয়ারম্যানের স্বাক্ষর
বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্তি, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬ ১৪৫১
ফরম-১২
[ বিধি ১৯ (১) দ্রষ্টব্য ]
ডিμী এবং আদেশের রেজিস্টার
............................................................... ইউনিয়ন পরিষদ
বৎসর μমিক
নং
১ নং
ফরমে
মামলার
নং ও সন
আবেদনকারীর
নাম
প্রতিবাদীর নাম ডিμী বা
আদেশের
তারিখ
ডিμী বা আদেশের বিবরণ গ্রাম
আদালতের
সম্মুখে দাবী
মিটানো
হইয়াছে
কিনা
জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট
বা সহকারী জজ কোন
আদেশ প্রদান করিলে
তাহা
যে তারিখের পূর্বে
ডিμীর দাবী মিটাইতে
হইবে বা ক্ষতিপূরণ
প্রদান করিতে হইবে
তাহা
দাবী মিটানোর
তারিখ
যদি নির্ধারিত মেয়াদের
মধ্যে ডিμীর দাবী
মিটানো অথবা
ক্ষতিপূরণ প্রদান করা
না হয় তাহা হইলে
গৃহীত ব্যবস্থার বিবরণ
মন্তব্য
১ ২ ৩ ৪ ৫ ৬ ৭ ৮ ৯ ১০ ১১ ১২ ১৩
১৪৫২ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬
ফরম-১৩
[ বিধি ২২ (২) দ্রষ্টব্য ]
গ্রাম আদালতের ক্ষতিপূরণের অর্থ লেনদেন রেজিস্টার
μমিক
নং
মামলা নং আবেদনকারীর নাম ও
ঠিকানা
প্রতিবাদীর নাম ও
ঠিকানা
সিদ্ধান্তকৃত টাকার
পরিমাণ
ও তারিখ
জমাকৃত টাকা
ও তারিখ
টাকা জমাকারীর নাম
ও স্বাক্ষর
গ্রহণকৃত
টাকা ও
তারিখ
টাকা গ্রহণকারীর নাম
ও স্বাক্ষর
সাক্ষীর নাম, স্বাক্ষর
ও তারিখ
মন্তব্য
১ ২ ৩ ৪ ৫ ৬ ৭ ৮ ৯ ১০ ১১
বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬ ১৪৫৩
ফরম-১৪
[বিধি ২৫ (১) দ্রষ্টব্য]
ফিস/জরিমানা রসিদ
১. ইউনিয়ন পরিষদের নামঃ....................
২. প্রদানকারীর নামঃ ..........................
৩. প্রদত্ত ফিস / জরিমানার পরিমাণ ঃ ........
৪. বিবরণঃ ......................................
৫. প্রদানের তারিখঃ .............................
ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান
-------------------এর স্বাক্ষর
গ্রাম আদালতের চেয়ারম্যান
সীলমোহর
ফরম-১৪
[বিধি ২৫ (১) দ্রষ্টব্য]
ফিস/জরিমানা রসিদ
১. ইউনিয়ন পরিষদের নামঃ....................
২. প্রদানকারীর নামঃ ..........................
৩. প্রদত্ত ফিস / জরিমানার পরিমাণঃ......
৪. বিবরণঃ ......................................
৫. প্রদানের তারিখঃ .............................
ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান
--------------------এর স্বাক্ষর
গ্রাম আদালতের চেয়ারম্যান
সীলমোহর
১৪৫৪ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬
ফরম-১৫
[ বিধি ২৫ (২) দ্রষ্টব্য ]
ফিস বা জরিমানা রেজিস্টার
μমিক
নং
প্রদানকারীর নাম আদায়কৃত
অর্থের পরিমাণ
বিবরণ অর্থ প্রাপ্তির
তারিখ
১৪ নং ফরমে
রসিদের নম্বর
গ্রাম আদালত/ ইউনিয়ন
পরিষদের চেয়ারম্যানের
স্বাক্ষর
মন্তব্য
১ ২ ৩ ৪ ৫ ৬ ৭ ৮
বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬ ১৪৫৫
ফরম-১৬
[ বিধি ২৬ (১) দ্রষ্টব্য ]
................................ইউনিয়ন পরিষদ পত্র প্রদান রেজিস্টার
(গ্রাম আদালত সংμাšও)
স্মারক
নং
তারিখ মামলার নং
ও তারিখ
প্রাপকের নাম ও ঠিকানা পত্র সংক্ষেপ সংরক্ষিত
ফাইল
চিঠির ধরন
(সাধারণ/
রেজিস্ট্রী)
ডাক খরচ
(টাকা)
মারফত পত্র বাহকের স্বাক্ষর মন্তব্য
১ ২ ৩ ৪ ৫ ৬ ৭ ৮ ৯ ১০ ১১
১৪৫৬ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬
ফরম-১৭
[ বিধি ২৭ (১) দ্রষ্টব্য ]
অভিযোগ গ্রহণ ও নিষ্পত্তির ত্রৈমাসিক প্রতিবেদন
ইউনিয়নঃ ...................................... উপজেলাঃ ...................................... জেলাঃ .................................. বিভাগঃ ........................
প্রতিবেদনের সময়কালঃ --------------------------------- হইতে ----------------------- পর্যন্ত
১. গ্রাম আদালত- এর অগ্রগতি (নোটঃ এখানে মামলার সংখ্যা বলতে নারী ও পুরুষ কর্তৃক দাখিলকৃত মামলার সংখ্যা বুঝানো হয়েছে)
বিরোধের
ধরন
পূর্বের অপেক্ষমান
মামলার সংখ্যা
ইউ.পিতে সরাসরি
দায়েরকৃত মামলার
সংখ্যা
উচ্চ আদালত
থেকে প্রেরিত
মামলার সংখ্যা
মোট মামলার
সংখ্যা
(১+২+৩)
নিষ্পত্তিকৃত মামলার
সংখ্যা (বিধি-৩৩,
আপোষ বা শুনানীতে
নিষ্পত্তি)
বাতিল ও উচ্চ
আদালতে প্রেরিত
মামলার সংখ্যা
মোট নিষ্পত্তিকৃত
মামলার সংখ্যা
(৫+৬)
বর্তমানে
অপেক্ষমান
মামলার সংখ্যা
(৪৭)
প্রতিবেদনকালীন
সময়ে রায়
বাস্তবায়নকৃত
মামলার সংখ্যা
আদায়কৃত
ক্ষতিপূরণের
পরিমাণ
১ ২ ৩ ৪ ৫ ৬ ৭ ৮ ৯
পুরুষ নারী পুরুষ নারী পুরুষ নারী পুরুষ নারী পুরুষ নারী পুরুষ নারী পুরুষ নারী পুরুষ নারী পুরুষ নারী
দেওয়ানী
ফৌজদারী
মোট
সর্বমোট
৩. সার্বিক বিষয়ে মন্তব্য (গ্রাম আদালতের উল্লেখযোগ্য কোন অর্জন, গ্রাম আদালত কার্যকর করার জন্য বিদ্যমান বাধাসমূহ ও অন্যান্য )। প্রয়োজনে অতিরিক্ত কাগজ ব্যবহার করা যাইবে।
স্বাক্ষর ও তারিখ: ..............................
. নাম: ......................................
চেয়ারম্যান,
..................................... ইউনিয়ন পরিষদ
বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬ ১৪৫৭
ফরম-১৮
[ বিধি ২৭ (৩) দ্রষ্টব্য ]
উপজেলার আওতাধীন গ্রাম আদালতে অভিযোগ গ্রহণ ও নিষ্পত্তির ত্রৈমাসিক প্রতিবেদন
উপজেলাঃ ..................................................... জেলাঃ .............................................................. বিভাগঃ .............................
প্রতিবেদনের সময়কালঃ ---------------------- হইতে ----------------------- পর্যন্ত
২. গ্রাম আদালত-এর অগ্রগতি (নোটঃ এখানে মামলার সংখ্যা বলতে নারী ও পুরুষ কর্তৃক দাখিলকৃত মামলার সংখ্যা বুঝানো হয়েছে)
বিরোধের
ধরন
পূর্বের অপেক্ষমান
মামলার সংখ্যা
ইউ.পিতে সরাসরি
দায়েরকৃত মামলার
সংখ্যা
উচ্চ আদালত
থেকে প্রেরিত
মামলার সংখ্যা
মোট মামলার
সংখ্যা
(১+২+৩)
নিষ্পত্তিকৃত মামলার
সংখ্যা (বিধি-৩৩,
আপোষ বা শুনানীতে
নিষ্পত্তি)
বাতিল ও উচ্চ
আদালতে প্রেরিত
মামলার সংখ্যা
মোট নিষ্পত্তিকৃত
মামলার সংখ্যা
(৫+৬)
বর্তমানে
অপেক্ষমান
মামলার সংখ্যা
(৪৭)
প্রতিবেদনকালীন
সময়ে রায়
বাস্তবায়নকৃত
মামলার সংখ্যা
আদায়কৃত
ক্ষতিপূরণের
পরিমাণ
১ ২ ৩ ৪ ৫ ৬ ৭ ৮ ৯
পুরুষ নারী পুরুষ নারী পুরুষ নারী পুরুষ নারী পুরুষ নারী পুরুষ নারী পুরুষ নারী পুরুষ নারী পুরুষ নারী
দেওয়ানী
ফৌজদারী
মোট
সর্বমোট
৩. সার্বিক বিষয়ে মন্তব্য (গ্রাম আদালতের উল্লেখযোগ্য কোন অর্জন, গ্রাম আদালত কার্যকর করার জন্য বিদ্যমান বাধাসমূহ ও অন্যান্য )
স্বাক্ষর ও তারিখঃ ................................
নামঃ ..................................... আইডি নং...........
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা
....................................................... উপজেলা
১৪৫৮ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬
ফরম-১৯
[বিধি ২৭ (৪) দ্রষ্টব্য]
জেলার আওতাধীন গ্রাম আদালতে অভিযোগ গ্রহণ ও নিষ্পত্তির ত্রৈমাসিক প্রতিবেদন
জেলাঃ ................................................... বিভাগঃ ............................................
প্রতিবেদনের সময়কালঃ ------------------------------------ হইতে ----------------------- পর্যন্ত
৩. গ্রাম আদালত-এর অগ্রগতি (নোটঃ এখানে মামলার সংখ্যা বলতে নারী ও পুরুষ কর্তৃক দাখিলকৃত মামলার সংখ্যা বুঝানো হয়েছে)
বিরোধের
ধরন
পূর্বের
অপেক্ষমান
মামলার সংখ্যা
ইউপিতে সরাসরি
দায়েরকৃত
মামলার সংখ্যা
উচ্চ আদালত
থেকে প্রেরিত
মামলার সংখ্যা
মোট মামলার
সংখ্যা
(১+২+৩)
নিষ্পত্তিকৃত মামলার সংখ্যা
(বিধি-৩৩, আপোষ বা
শুনানীতে নিষ্পত্তি)
বাতিল ও উচ্চ
আদালতে প্রেরিত
মামলার সংখ্যা
মোট নিষ্পত্তিকৃত
মামলার সংখ্যা
(৫+৬)
বর্তমানে
অপেক্ষমান
মামলার সংখ্যা
(৪৭)
প্রতিবেদনকালীন
সময়ে রায়
বাস্তবায়নকৃত মামলার
সংখ্যা
আদায়কৃত
ক্ষতিপূরণের
পরিমাণ
১ ২ ৩ ৪ ৫ ৬ ৭ ৮ ৯
পুরুষ নারী পুরুষ নারী পুরুষ নারী পুরুষ নারী পুরুষ নারী পুরুষ নারী পুরুষ নারী পুরুষ নারী পুরুষ নারী
দেওয়ানী
ফৌজদারী
মোট
সর্বমোট
৩. সার্বিক বিষয়ে মন্তব্য (গ্রাম আদালতের উল্লেখযোগ্য কোন অর্জন, গ্রাম আদালত কার্যকর করার জন্য বিদ্যমান বাধাসমূহ ও অন্যান্য)
স্বাক্ষর ও তারিখঃ ...............................
নামঃ ....................... আইডি নং...........
উপ পরিচালক, স্থানীয় সরকার
...............................................জেলা
বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬ ১৪৫৯
ফরম-২০
[ বিধি ৩৪ (৫)দ্রষ্টব্য ]
অর্থ/জরিমানা আদায়
........................................................................................ ইউনিয়ন পরিষদ
তারিখঃ
বরাবর ......................................
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সার্টিফিকেট অফিসার
................................উপজেলা.....................জেলা।
যেহেতু .........................................ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম আদালতের.............................. সালের.............................নং মামলা সংμাšও
............................টাকা জনাব.................................. পিতা............................... গ্রাম...................... ইউনিয়ন...........................
উপজেলা........................... জেলা......................... এর নিকট অনাদায় রহিয়াছে;
সেইহেতু এতদ্বারা আপনাকে অনুরোধ করা যাইতেছে যে, ইউনিয়ন পরিষদ (স্থানীয় সরকার) আইন, ২০০৯ এবং গ্রাম আদালত আইন, ২০০৬ (২০১৩ সনে
সংশোধিত) এবং সরকারি দাবী আদায় আইন, ১৯১৩ এর বিধান মোতাবেক জনাব...................................................................... এর নিকট
হইতে উক্ত অর্থ আপনি আদায় করিবেন এবং তাহা ........................................ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের নিকট প্রেরণ করিবেন।
সংযুক্তঃ মামলার সিদ্ধান্তের অনুলিপি (১১নং ফরম)
তারিখ....................... ...............................................
সীলমোহর .............................. ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের স্বাক্ষর
১৪৬০ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, ফেব্রæয়ারি ১৫, ২০১৬
ফরম-২১
[ বিধি ৩৬ দ্রষ্টব্য ]
ফৌজদারী আদালতে মামলা প্রেরণ
.................................................................................................... ইউনিয়ন পরিষদ
তারিখঃ...................................
বরাবর
সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত
জেলা............................. , (............................ উপজেলা)।
বিষয়ঃ সুবিচারের উদ্দেশ্যে মামলা হস্তান্তর প্রসঙ্গে।
যেহেতু গ্রাম আদালতের নিকট প্রতীয়মান হইতেছে যে, এতদসংলগড়ব অভিযুক্ত ব্যক্তির অপরাধ গুরুতর এবং তাহাকে কেবল জরিমানা করা হইলে সুবিচার
করা হইবে না। তাহার অধিকতর শাস্তি হওয়া উচিত;
সেইহেতু আমরা এতদ্দ¦ারা মামলাটি আপনার নিকট প্রেরণ করিতেছি এবং আপনার আদালতে উহার বিচার ও নিস্পত্তি করিতে আপনাকে অনুরোধ করিতেছি।
তারিখঃ ....................... ....................................
সীলমোহর ................... গ্রাম আদালতের চেয়ারম্যানের স্বাক্ষর
রাষ্ট্রপতির আদেশμমে
আবদুল মালেক
সচিব।
মোঃ আব্দুল মালেক, উপপরিচালক, বাংলাদেশ স রকারি মুদ্রণালয়, তেজগাঁও, ঢাকা কর্তৃক মুদ্রিত।
মোঃ আলমগীর হোসেন, উপপরিচালক, বাংলাদেশ ফরম ও প্রকাশনা অফিস,
তেজগাঁও, ঢাকা কর্তৃক প্রকাশিত। বিন ংরঃব : িি.িনমঢ়ৎবংং.মড়া.নফ

 

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter